পরকীয়ার প্রতিশোধ, ১৫ বছর পর হত্যা!

আপডেট: 05:24:50 05/09/2019



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে মিনারুল (৩৮) হত্যার মূল আসামি হাফিজুর রহমানকে (৪৫) আটক করেছে যশোর পিবিআই।
স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার প্রতিশোধ নিতে এই হত্যাকাণ্ড বলে তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন। 
শনিবার (২৪ আগস্ট) বিকেলে যশোর সদর উপজেলার উসমানপুর এলাকা থেকে তাকে আটক করে পিবিআই। 
আজ ২৫ আগস্ট দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট গৌতম মল্লিকের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ধৃত হাফিজুর।
পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন- পিবিআই,  যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমকেএইচ জাহাঙ্গীর হোসেন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জিয়াউর রহমান জানান, গত ১৪ আগস্ট রাতে যশোর সদর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের শালতা গ্রামে মিনারুল খুন হন। খুনের ঘটনায় নিহতের ভাই আক্তারুজ্জামান বাদি হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।  থানা পুলিশ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করতে ব্যর্থ হলে পিবিআই দায়িত্ব গ্রহণ করে।  এরপর প্রযুক্তি ব্যবহার করে মিনারুল হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী একই গ্রামের চাঁদ আলী মোল্লার ছেলে হাফিজুর রহমানকে আটক করা হয়।  সে হত্যাকাণ্ড এবং হত্যার মূল কারণ প্রকাশ করে।
তিনি জানান, হাফিজুর পুলিশকে জানিয়েছে- বছর ১৫ আগে তার (হাফিজুর) স্ত্রী সাবিনার সাথে মিনারুলের পরকীয়া ছিল। এ ঘটনা জানাজানির পর শর্তসাপেক্ষে মিনারুলকে ক্ষমা করে দেয়া হয়।  এরপর একই গ্রামের বিলকিসের সাথে আবার সে আবার পরকীয়ায় লিপ্ত হয়।
হাফিজুর পুলিশকে জানিয়েছেন, মিনারুলের কারণেই তিনি তার প্রথম স্ত্রী সাবিনাকে তালাক দেন।  তিনি তাকে খুব ভালবাসতেন।  প্রথম স্ত্রী না থাকার বেদনা তিনি ভুলতে পারেননি।   সেকারণে চরম প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যে অপেক্ষায় ছিলেন।  এরপর কোরবানির ঈদের কয়দিন আগে তিনি মিনারুলের বাড়ি গিয়ে প্রথমে অবস্থা দেখে আসেন এবং ১৪ তারিখ রাতে সুযোগ বুঝে তাকে বাড়ির পাশে একটি বাগানে নিয়ে যান।  পরিস্থিতি অনুকুলে এলে তিনি তার কাছে থাকা দা দিয়ে কুপিয়ে মিনারুলকে হত্যা করেন। 
আজ আদালতে এ সংক্রান্তে তিনি জবানবন্দি দিয়েছেন।  আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।  

আরও পড়ুন