ট্রেন থেকে ফেনসিডিল উদ্ধার ঘটনায় ভিন্ন বক্তব্য

আপডেট: 09:33:08 21/05/2019



img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরে রেল পুলিশের (জিআরপি) সদস্য মোস্তাকিমের কাছ থেকে ৫৪ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধারের ঘটনায় ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে।
র্যা বের দাবি, ওই ফেনসিডিল জিআরপি সদস্যের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে। আর জিআরপি বলছে, তিনি ওইসময় অন ডিউটিতে ছিলেন।
ফেনসিডিল উদ্ধারের এই ঘটনায় রাজশাহী থেকে খুলনাগামী মহানন্দা ট্রেনটি প্রায় দু’ঘণ্টা যশোর স্টেশনে ছিল।
র্যা ব-৬ যশোর ক্যাম্পের উপ-অধিনায়ক মেজর আশরাফ সাংবাদিকের বলেছেন, তাদের কাছে খবর ছিল- ট্রেনে দায়িত্বরত অবস্থায় একজন জিআরপি সদস্য ফেনসিডিল বহন করছেন। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে র্যা ব সদস্যরা যশোর রেল স্টেশনে অবস্থান নেন। বিকেল ৫টা ৫মিনিটে মহানন্দা ট্রেনটি যশোর স্টেশনে থামে। এরপর ট্রেনের শেষবগিতে তল্লাশ চালিয়ে জিআরপি সদস্য মোস্তাকিমের কাছ থেকে ৫৪ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। তিনি সেইসময় পুলিশের পোশাক পরিহিত অবস্থায় ছিলেন, সেকারণে তাকে জিআরপি যশোর ফাঁড়িতে সোপর্দ করা হয়।
যোগাযোগ করা হলে যশোর জিআরপি ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই তরিকুল ইসলাম বলেন, মোস্তাকিম ট্রেনে অন ডিউটিতে ছিলেন এবং তার কাছ থেকে ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়নি। তারপরেও তাকেসহ উদ্ধার ফেনসিডিল নিয়ে খুলনা জিআরপি থানায় যাচ্ছি। সেখানে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যা করার করবেন।
খুলনা জিআরপি থানার ওসি ওসমান গণি জানান, র্যা বের সাথে রেল পুলিশের ফেনসিডিল উদ্ধার ঘটনায় ঝামেলা হয়েছে শুনেছি। তারা এখনও খুলনায় পৌঁছেনি। বিষয়টি গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে।
এ বিষয়ে যশোর রেল স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার কেএম রিয়াদ হাসান বলেন, মহানন্দায় ফেনসিডিল বহন করা হচ্ছে- মর্মে র্যামব সদস্যরা ট্রেনে অভিযান চালান। স্টেশনে ট্রেনটি ১০মিনিট থাকার কথা থাকলেও প্রায় দু’ঘণ্টা পর ৭টা ১৫মিনিটে মহানন্দা যশোর ছেড়ে যায়।

আরও পড়ুন