কেশবপুরে ‘গোলাগুলিতে’ দুই ‘ডাকাত’ হতাহত

আপডেট: 06:21:03 20/04/2017



img
img

স্টাফ রিপোর্টার : যশোরের কেশবপুরে গোলাগুলিতে দুই ব্যক্তি হতাহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, ডাকাতদলের মধ্যে গুলিবিনিময়কালে তারা হতাহত হন।
গুলিতে নিহত ব্যক্তির নাম ইউনুছ হোসেন (৪০)। তিনি সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার মণিপুর গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে। আর আহত ব্যক্তি হলেন আশরাফ হোসেন (২৮)। তিনি কেশবপুরের দেউলি গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে ও স্থানীয় যুবলীগ কর্মী।
বৃহস্পতিবার ভোররাতে কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের দেউলির মোড়ে রাস্তার ওপর কথিত গোলাগুলির ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, দুটি রাম দা এবং রশি (দড়ি) উদ্ধারের দাবি করেছে।
কেশবপুর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম শহিদ সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘পুলিশ খবর পায় দেউলি মোড়ে দুই দল ডাকাতের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ চলছে। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতদের প্রায় সবাই পালিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে আহত অবস্থায় দুইজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। কর্তব্যরত ডাক্তার এদের একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মৃত ব্যক্তি ইউনুছ; আর আহত ব্যক্তি আশরাফ।’
ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, দুটি রাম দা এবং বেশ কিছু রশি উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।
কেশবপুর থানাপুলিশ বলছে, নিহত ইউনুছের বিরুদ্ধে ডাকাতি, অস্ত্র ও হত্যা মামলা রয়েছে। আর আশরাফের বিরুদ্ধে একটি ডাকাতি ও একটি অস্ত্র মামলা আছে।
যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার মো. আব্দুর রশিদ সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘গুলিবিদ্ধ ইউনুছ হাসপাতালে আনার আগেই মারা গেছেন।’
জানতে চাইলে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের বিশেষজ্ঞ ডা. মো. মোসলেম উদ্দিন সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘আহত আশরাফের শরীরের বিভিন্ন স্থানে চাপা আঘাত করা হয়েছে। তবে তিনি আশঙ্কামুক্ত।’
কথিত বন্দুকযুদ্ধ, হত্যা ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় কেশবপুর থানায় তিনটি মামলা হয়েছে বলে জানান থানার ওসি।

আরও পড়ুন