কবরে নিয়ে শিশু ধর্ষণ, ধর্ষকের যাবজ্জীবন

আপডেট: 04:03:55 11/06/2018



img

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরায় এক স্কুলছাত্রীকে (১১) ধর্ষণের দায়ে জিয়াউর রহমান (৩৩) নামে এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।
সোমবার (১১ জুন) দুপুরে সাতক্ষীরা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক হোসনে আরা আক্তার এ রায় ঘোষণা করেন।
সাজাপ্রাপ্ত জিয়াউর রহমান সাতক্ষীরা সদর উপজেলার দক্ষিণ তলুইগাছা গ্রামের মৃত রাহামতউল্লাহ সরদারের ছেলে।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৯ সালের ২৮ অক্টোরব দুপুরে নির্যাতিত শিশুটি তার চাচাতো বোনকে নিয়ে প্রতিবেশী জিয়াউর রহমানের আমবাগানে যায়। এ সময় জিয়াউর রহমান ওই শিশুকে চালতে পাড়তে গাছে উঠিয়ে দেয়। সে চারটি চালতে পাড়লে সেগুলো নির্যাতিত শিশুর চাচাতো বোনকে দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেয় এবং নির্যাতিত শিশুকে বলে, 'তুমি থাকো, তোমাকে কদবেল দেবো।' চালতেগুলো নিয়ে ওই শিশুর চাচাতো বোন চলে গেলে জিয়াউর রহমান তাদের পারিবারিক গোরস্থানের একটি কবরে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। এ সময় তার চাচাতো বোন আবার ফিলে এলে তাদেরকে খুঁজে না পেয়ে দেখে গোরস্থানে একটি কুকুর ডাকছে। পরে সে কুকুর তাড়াতে ইট মারলে জিয়াউর রহমান কবর থেকে উঠে পালিয়ে যায়। পরে কবরের মধ্য থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।
ধর্ষিত শিশুটির মা বাদী হয়ে ঘটনার ব্যাপারে ২০০৯ সালের ৩১ অক্টোবর সদর থানায় মামলা করেন।
এ মামলায় চারজনের সাক্ষী ও নথি পর্যালোচনা করে আসামির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত।
সাতক্ষীরা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট জহুরুল হায়দার বাবু বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আসামি পলাতক রয়েছে।

আরও পড়ুন