এবার চৌগাছায় ডা. নাসিরের বিশাল শো-ডাউন

আপডেট: 06:46:01 15/04/2017



img

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি : অধ্যাপক ডাক্তার মেজর জেনারেল (অব) নাসির উদ্দিন এবার চৌগাছায় বিশাল শো-ডাউন করেছেন। যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী এই মুক্তিযোদ্ধা।
শনিবার সকালে যশোর বিমানবন্দরে নেমে প্রায় একশ কার-মাইক্রোবাস ও তিনশত মোটরসাইকেলের বহর নিয়ে তিনি গণসংযোগ করেন। যশোর বিমান বন্দর থেকে তিনি ঝিকরগাছা উপজেলার কায়েমকোলা-ছুটিপুর বাজার হয়ে চৌগাছার কাবিলপুর-মাশিলা-পুড়াপাড়া-খড়িঞ্চা যান। পরে তিনি চৌগাছা- সিংহঝুলী-সলুয়া বাজার হয়ে যশোর ফেরেন। এ সময় কায়েমকোলা, ছুটিপুর, কাবিলপুর, মাশিলা, পুড়াপাড়া, চৌগাছা শহর, সিংহঝুলী ও সলুয়া বাজারে পথসভায় বক্তৃতা করেন ডা. নাসির।
চৌগাছা শহরের ভাস্কর্যের মোড়ে অনুষ্ঠিত পথসভায় তিনি নিজের পরিচয় দিয়ে বলেন, ‘আমি মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডাক্তার মেজর জেনারেল (অব.) নাসির উদ্দিন ঝিকরগাছা উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের ডহর মাগুরা গ্রামের সন্তান। আমি এখানেই লেখাপড়া করেছি। গঙ্গানন্দপুর হাইস্কুল, যশোর জিলা স্কুলে লেখাপড়ার পর মেডিকেল কলেজে ভর্তি হই। সেখানে পাঠরত অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। মুক্তিযুদ্ধ শেষে আবার মেডিকেল কলেজে লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করি। সেখান থেকে পাশ করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করি। ৩৫ বছর সেনাবাহিনীতে চাকরি করার পর আবার আপনাদের মাঝে ফেরত এসেছি।’
তিনি বলেন, ‘আমরা বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে যে বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলাম, সেই লক্ষকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আপনাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছি। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি আপনাদের সাহায্যপ্রার্থী।’
সভা শেষে সংক্ষিপ্ত এক সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেন, ‘দলীয় নির্দেশনা পেয়েই নির্বাচনী এলাকায় এসেছি। আমি যশোর সরকারি কলেজে ছাত্রাবস্থায় ছাত্র সংসদের নির্বাচিত সদস্য ছিলাম।’
তিনি বলেন, ‘রাজনীতিতে প্রতিপক্ষ থাকবে। আমি এখনো কাউকে একক প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করছি না।’
এত দ্রুত নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন কেন?- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন যারা নির্বাচন করতে চান তাদের নিজের এলাকায় জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে। সেই নির্দেশনার আলোকে আমি এসেছি।’
তিনি দাবি করেন, ‘আমার শো-ডাউনে স্থানীয় এমপির সহযোগী সন্ত্রাসীরা বাধা দিচ্ছে। এর আগে ঝিকরগাছায় শো-ডাউন করার দিনও তারা বাধা দিয়েছিল। আজও তারা বাধা দিয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘সব বাধা উপেক্ষা করেই আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করে এই এলাকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করবো ইনশাআল্লাহ।’
তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের সেবা করি। সেনাবাহিনীতে চাকরি করার সময়ে আমার কাছে যারা গেছেন আমি তাদের জন্য করেছি। আমি তিন থেকে চার হাজার লোককে চাকরি দিয়েছি। তাদের কেউ কখনো বলতে পারবে না আমি কারো কাছ থেকে কোনো প্রকার সুবিধা নিয়েছি। আমি একজন ডাক্তার। জনগনের সেবা করাই আমার কাজ।’

আরও পড়ুন